ভ্রমণে বের হওয়ার আগে গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস

ভ্রমন পছন্দ করেন না পৃথিবীতে এমন মানুষ খুজে পাওয়া কঠিন। আর এই ভ্রমনকে আরো আনন্দময় করে তুলতে প্রয়োজন ভাল প্রস্তুতি। ভ্রমণ শুরুর আগেভাগে গোছগাছের কাজটি ঠিকভাবে সেরে নিলে ভ্রমণের পুরো সময়ই ভালো ও সুস্থ থাকা যায়। ভ্রমণকে নিরুদ্বেগ রাখতে প্রয়োজনীয় কিছু টিপস-

ভ্রমণ সম্পর্কিত যাবতীয় কাগজপত্র যেমন টিকিট, ম্যাপ, সিডুইল ইত্যাদি, আর বিদেশে ভ্রমনের ক্ষেত্রে পাসপোর্ট, ট্র্যাভেল ভিসা, ফ্লাইটের টিকিট ও ডলার এন্ডোসমেন্ট কপি ইত্যাদি মনে করে হাতের কাছে রাখতে হবে। ভ্রমনের পূর্বে নিকটস্থ আত্বীয়র কাছে ভ্রমন সংক্রান্ত যাবতীয় কাগজ পত্রের এক সেট ফটোকপি রেখে যাওয়া উচিত। জাতীয় পরিচয়পত্র সংগে রাখতে হবে এবং একটি কাগজে নাম-ঠিকানা, ফোন নম্বর ও জরুরি তথ্যগুলো লিখে রাখতে হবে। যদি চশমা ব্যবহার করেন তবে অতিরিক্ত চশমা ব্যাগে নেওয়া ভালো। একটি ট্রাভেল কিট বানিয়ে নেওয়া যেতে পারে যেখানে থাকবে প্রয়োজনীয় ওষুধসহ গজ, ব্যান্ডেজ, অ্যান্টিসেপটিক মলম বা সলিউশন। সঙ্গে নেওয়া ওষুধপত্রের একটি তালিকা লিখে হ্যান্ডব্যাগে রাখতে হবে।

সব সময় সঙ্গে এক বোতল পানি রাখা জরুরি। বের হওয়ার আগে মুখে সানস্ক্রিন ক্রিম মেখে নিতে হবে। প্রখর সূর্যালোক থেকে রক্ষা পেতে সানগ্লাস এবং হ্যাট ব্যবহার করা যেতে পারে।

যেখানে যাওয়া হবে সে স্থান সম্পর্কে অভিজ্ঞ কারো কাছ থেকে পূর্ব ধারণা নিয়ে রাখতে হবে। বই পড়েও জানা যেতে পারে। সেখানকার আবহাওয়া ও পরিবেশ সম্পর্কে জেনে নিতে হবে।

হোটেলের ভেতর জিনিসপত্র নিজ দায়িত্বে রাখতে হবে। বাইরে যাওয়ার সময় দরজা লক করে যাওয়া জরুরি। ট্যুরের সময়টুকুতে খাওয়া-দাওয়ার একদম অনিয়ম করা যাবে না। পেটে সমস্যা হতে পারে এমন খাবার এড়িয়ে চলা উচিত।

নির্ধারিত স্টেশন ছাড়া অন্য স্থান থেকে বাস, ফেরি, নৌকা ইত্যাদিতে ওঠানামা করা উচিত না। ভ্রমণসঙ্গীর ট্র্যাভেল ব্যাগটি দেখে নিতে হবে যে তা পানিরোধক (ওয়াটারপ্রুফ) কি না। ব্যাগের চেইনগুলোও দেখে নেওয়া ভালো।

প্রতিটি লাগেজের ভেতরে নিজের নাম-ঠিকানা ও ফোন নম্বর লেখা লেবেল সেঁটে রাখা উচিত। আরামদায়ক সাধারণ পোশাকে ভ্রমণ করাই ভালো। এতে অহেতুক দৃষ্টি আকর্ষণ করার বিপদ এড়ানো যায়।যাত্রা শুরু করার সময় মালপত্রের একটি তালিকা তৈরি করে কাছে রাখা উচিত।