লম্বা হওয়ার ৭ টি উপায়

পৃথিবীতে বিভিন্ন মানুষের উচ্চতা বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। কেউ খুব লম্বা (tall) আবার কেউ খুব বেঁটে বা মাঝারি হয়। কেউ এই উচ্চতা জিন থেকে পায় আবার কেউ অপুষ্টির স্বীকার হয় তাই তাদের উচ্চতা বাড়ে না। বেশিরভাগ বেঁটে মানুষেরা অপুস্টির স্বীকার হয়ে থাকে। অনেক অভিজ্ঞ ডাক্তার বলেন একটা নির্দিষ্ট বয়স (age) পর্যন্ত উচ্চতা বাড়ে। যদি সেই বয়সের মধ্যে কিছু পুষ্টিকর খাবার খাওয়া যায় তাহলে উচ্চতা বাড়বে।

১। সুপঃ সুপ খাওয়া শরীরের পক্ষে খুব উপকারী। এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে। ফলে শারীরিক বৃদ্ধিতে(physically increase) সাহায্য করে। সুপ হল এমন একটি জিনিস যাতে কোন মসলা বা শরীরের পক্ষে ক্ষতিকারক কোন উপকরন থাকেনা। যে কোন ধরনের সুপ খাওয়া যেতে পারে।

যেমন- চিকেন সুপ, সুইট কর্ন সুপ, মাস্রুম সুপ, মিক্সড ভেজিটেবিল সুপ ইত্যাদি। এই সুপ গুলি কেবল তার উপকরন দিয়ে সিদ্ধ করা হয়। ফলে পুষ্টি থাকে অনেক।

২। অ্যাভোকাডোঃ এই জিনিসটি শরীরে পুষ্টির চাহিদা মেটায়। ফলে উচ্চতার বৃদ্ধি ঘটে। এই ফলটি খুব সুস্বাদু। উচ্চতা বৃদ্ধি করতে চাইলে এটি খাওয়া যেতে পারে। বাচ্চারাও এই ফল খেতে খুব পছন্দ করে।

৩। বাদামঃ বাদামে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও প্রোটিন। এটি শরীরকে পুষ্টি জোগায়। পুষ্টি পেলে শারীরিক বৃদ্ধি (physically increase) ঘটে আর সঙ্গে উচ্চতাও বাড়ে। সকালে ঘুম থেকে উঠে প্রতিদিন নিজের এবং নিজের বাচ্চার খাদ্য (food) তালিকায় বাদাম রাখা যেতে পারে।

৪। আপেলঃ আপেলে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার ও জল থাকে। এটি শরীরে জলের চাহিদা পুরন করবে। আপেল সিদ্ধ বা কাঁচা সব রকম ভাবেই খাওয়া যেতে পারে। একদম ছোট বাচ্চাদের বেশিরভাগ সময় আপেল সিদ্ধ করে খাওয়ানো হয়। বড়দের ক্ষেত্রে কাঁচা আপেল কেটে খাওয়া যেতে পারে।

৫। ডার্ক চকলেটঃ চকলেট আমাদের সবারই খেতে ভালো লাগে। সে ছোট হোক বা বড় সবাই চকলেট খেতে ভালোবাসে। তবে বেশি চকলেট খাওয়া শরীরের পক্ষে ভালো নয়। কিন্তু ডার্ক চকলেট বাচ্চাদের উচ্চতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

৬। ডিমঃ ডিম খেতে আমরা সকলেই ভালোবাসি। এটি খুব সুষম খাদ্য (food)। এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন ও ভিটামিন আছে। এটি শরীরের বৃ্দ্ধিতে সহায়তা করে। বাচ্চারা প্রতিদিন একটি ও বড়দের প্রতিদিন দুটি করে অবশ্যই ডিম সিদ্ধ খাওয়া উচিৎ।

৭। ছোলা, মটরশুটি, মসুরঃ এসব ডাল জাতীয় খাদ্য (food)শরীরের পক্ষে খুবই পুষ্টিকর। এগুলোর মধ্যে প্রোটিন, ভিটামিন-বি, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, ফাইবার ও লৌহ উপাদান রয়েছে, যা শরীরের সকল কোষের বিভাজন ঘটিয়ে দেহের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।