হজমশক্তি বাড়ানোর কয়েকটি মোক্ষম উপায়

হজমশক্তি বাড়ানোর কয়েকটি মোক্ষম উপায়

বিশেষজ্ঞদের কথায়, যে কোনো খাবার হজম করার প্রক্রিয়া তিনটি ধাপে সম্পন্ন হয়। খাবার খাওয়া, ভালো ভাবে পরিপাক করা এবং পুষ্টিনির্যাস দেহে শোষিত হওয়া। এই তিনটির কোনো একটি ধাপ ঠিক ভাবে না কাজ করলেই বদহজম হয়। তার থেকে তৈরি হয় জটিলতা। তাই শিশু থেকে বয়স্ক, প্রত্যেকেরই হজমশক্তি ঠিক রাখতে হবে।

১। জিভে নুন

 

খাওয়া শুরু করার আগে জিভে এক চিমটে নুন দিয়ে নিলে খাবার ভালো হজম হয়।

২। হজমে সাহায্যকারী ব্যাকটেরিয়া

 

যে ব্যাকটেরিয়া হজম প্রক্রিয়া দ্রুততর করতে সাহায্য করে সেগুলোর পরিমাণ শরীরে বাড়ানো যেতে পারে। প্রাকৃতিক ভাবে এই জাতীয় ব্যাকটেরিয়ার সব চেয়ে ভালো উৎস দই। তাই দিনে একবার দেড়শো থেকে দু’শো এমএল দই খাওয়া উচিত।

৩। পর্যাপ্ত ঘুম

 

রাত জাগলেও হজমের ক্ষতি হয়। কারণ বিশেষজ্ঞরা বলেন, হজমের কাজে লাগে অক্সিজেন। রাতে সেটি তুলনামূলক কম থাকে। সেই সঙ্গে রাতের বেলা ফুসফুসের বেশির ভাগ অংশ কাজে লাগে ফলে শরীরে অক্সিজেন জোগান কম হয়, তার ওপর রাতে জেগে থাকলে শরীরের সব ক’টি অঙ্গপ্রত্যঙ্গই সক্রিয় থাকে। ফলে শরীরে অক্সিজেনের ঘাটতি তৈরি হয় এবং হজমপ্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টি হয়। তাই প্রতি রাতে পর্যাপ্ত ঘুমানো জরুরি।

৪। অক্সিজেনের জন্য ব্যায়াম

 

শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে অক্সিজেন থাকলে বিভিন্ন ক্রিয়া-বিক্রিয়া ভালো হয়। এমনকি হজমও ভালো হয়। এ ক্ষেত্রে অক্সিজেনের বিকল্প নেই। তাই শ্বাসতন্ত্রকে সুস্থ রাখতে শ্বাসের ব্যায়াম করা উচিত।

৫। পর্যাপ্ত জল

 

অনেকেই খেতে খেতে জল খান। অনেক ক্ষেত্রেই এটি বদহজমের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু অবশ্যই খাওয়ার অন্তত ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর জল খাওয়া উচিত। আরও পরে খেতে পারলে আরও ভালো। তবে শরীরে জলের ঘাটতি বদহজমের অন্যতম কারণ। তাই শরীরের ওজন ও বয়স অনুযায়ী পর্যাপ্ত জল খাওয়া খুবই জরুরি।\

আরো দেখুন—

 

হজমশক্তি বাড়ানোর কয়েকটি মোক্ষম উপায়