যেসব ক্ষতি হতে পারে খাওয়ার পরপরই দাঁত ব্রাশ করলে

যেসব ক্ষতি হতে পারে খাওয়ার পরপরই দাঁত ব্রাশ করলে
যেসব ক্ষতি হতে পারে খাওয়ার পরপরই দাঁত ব্রাশ করলে

যেসব ক্ষতি হতে পারে খাওয়ার পরপরই দাঁত ব্রাশ করলে

 

সাধারণত আমাদের দাঁত ব্রাশ করা দিয়ে দিন শুরু এবং শেষ হয়।অথচ অনেকেই দাঁত ব্রাশ করার সঠিক নিয়ম জানে না। আবার অনেকেই ধারণা করেন, প্রতিবার খাওয়ার পরই দাঁত ব্রাশ করা উচিত এবং এতে দাঁত ভালো থাকে। তবে প্রয়োজনের অতিরিক্ত কোনোকিছুই ভালো নয়। প্রয়োজনের চেয়ে বেশি দাঁত মাজলে উপকারের বদলে ক্ষতিই বেশি হয়। দাঁত ব্রাশ করার সঠিক নিয়ম ও সময় সম্পর্কে নিচের বিষয় গুলো ধারণা দিবে_

 

=> চা, কফি এবং কোমল পানীয় পান করার পরপরই দাঁত ব্রাশ করা উচিত নয়।এ জাতীয় পানীয়তে থাকা অ্যাসিডের সঙ্গে টুথপেস্টের বিক্রিয়ার ফলে দাঁতের এনামেল ক্ষয় হয়ে যায় এবং অ্যাসিড দাঁতের এনামেলের ভেতরে আঁটকে যায়। তাই এ ধরনের পানীয় পানের অন্তত আধা ঘন্টা পরে দাঁত মাজা উচিত।

 

=> প্রতিবার খাওয়ার পর দাঁত ব্রাশ করা মোটেও জরুরি নয়। সকাল আর রাতে  দুইবার দাঁত ব্রাশ করাই যথেষ্ট। খাওয়ার পরপরই দাঁত মাজা জরুরি কিনা তা নির্ভর করছে খাবারের ধরণের উপর।প্রয়োজনের চেয়ে বেশিবার দাঁত মাজার ফলে দাঁতের মাড়ি এবং এনামেল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ‘টুথ সেনসিটিভিটি’ বা দাঁত শিরশির করার সমস্যা দেখা দিতে পারে। এধরণের সমস্যায় অনেকেই ভুগে থাকেন।

 

এখন প্রশ্ন হলো, তাহলে কখন দাঁত মাজা উত্তম?

 বিশেষজ্ঞরা বলেন, সকালে এবং রাতে খাওয়ার পর মোট দুইবার দাঁত ব্রাশ করা উচিত।তবে খাবার খাওয়া ও দাঁত ব্রাশ করার মধ্যে অন্তত আধা ঘন্টা বিরতি রাখা উচিত। এতে অ্যাসিডের মাত্রা অনেকাংশেই কমে যাবে।

বেশি চাপ দিয়ে এবং অতিরিক্ত দাঁত ব্রাশ করার ফলে দাঁতের এনামেল ও মাড়ির ক্ষয় প্রাপ্তহয়। তাছাড়া টুথব্রাশের ব্রিসেলস বেশি শক্ত হওয়ার ফলেও দাঁত ও মাড়ি কেটে যেতে পারে।

 

আরো দেখুন————–

যেসব ক্ষতি হতে পারে খাওয়ার পরপরই দাঁত ব্রাশ করলে